হ্যান্স জিমার- সিনেমা আর সংগীতের যুগলবন্দীর ঈশ্বর

সিনেমার ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর একটি বিশাল ভূমিকা পালন করে ফিলিং বা অ্যাটমোস্ফেয়ার তৈরী করার জন্য। সিনেমাকে এমপাওয়ার করে ভীষন শক্তিশালী করে ভাল ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর। আবার বাজে স্কোর ভাল ভিজ্যুয়ালকেও নষ্ট করে দিতে পারে নিমেষেই। মেধাবী মুভি কম্পোজারদের তাই ভীষণ গুরুত্ব দেন পরিচালকরা। এমনই এক মেধাবী ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর কম্পোজার নিয়ে কথা বলবো আজ।

হ্যান্স জিমার

১৯৫৭ এর ১২ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করা এই জার্মান কম্পোজার এর বয়স বর্তমানে ৬৩ বছর। দাপিয়ে স্কোর করে চলেছেন তিনি এখনও। ক্রিস্টোফার নোলান এর বহুল প্রতীক্ষিত ইন্টারস্টেলার এর মিউজিকও করছেন তিনি। সাথে স্পাইডার ম্যান সহ অনেক অনেক তো আছেই। প্রায় শতাধিক সিনেমা ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর করা হ্যান্স জিমার পুরষ্কারও পেয়েছেন অনেক। তার ক্যারিয়ারের প্রথম জীবন লন্ডনে শুরু হলেও অল্প কিছুদিন পরেই তিনি আমেরিকায় স্থায়ী হয়ে যান। তার অসাধারণ ব্যাকগ্রাউন্ডের জন্য দি ডেইলী টেলিগ্রাফ তাকে টপ 100 লিভিং জিনিয়াস এর তালিকায় স্থান দিয়েছেন।

হ্যান্স জিমার তার স্টুডিওতে..

পৃথিবী খ্যাত পরিচালকদের প্রথম পছন্দ হচ্ছেন হ্যান্স জিমার। পৃথিবী কাঁপানো সিনেমাগুলোর ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর তারই করা। কয়েকটির নাম বললেই সিনেমাপ্রেমীরা বুঝবেন হ্যান্স জিমার এর বিশালতা।

Man of Steel (2103), The Lone Ranger (2013), The Dark Knight Rises (2012), Madagascar 3: Europe’s Most Wanted (2012), Sherlock Holmes: A Game of Shadows (2011)

Kung Fu Panda 2 ( 2011) , Pirates of the Caribbean: On Stranger Tides ( 2011), The Dilemma 2011, Megamind (2010), Inception (2010), Sherlock Holmes (2009), It’s Complicated (2009), Angels & Demons (2009), Madagascar: Escape 2 Africa (2008), The Burning Plain (2008), The Dark Knight (2008), Kung Fu Panda (2008), Batman: The Dark Knight (2008), Pirates of the Caribbean: At World’s End (2007), The Holiday (2006), Pirates of the Caribbean: Dead Man’s Chest (2006)

The Da Vinci Code (2006), The Weather Man (2005), Batman Begins (2005), Madagascar (2005), King Arthur (2004), Something’s Gotta Give (2003), The Last Samurai (2003), Tears of the Sun (2003), The Ring (2002), Black Hawk Down (2001), Invincible (2001), Pearl Harbor (2001), The Pledge (2001), Gladiator (2000)

The Rain man (1998), The Thin Red Line (1998), The Rock (1996), Broken Arrow (1996), Crimson Tide (1995), Something to Talk About (1995), Drop Zone (1994), The Lion King (1994), Renaissance Man (1994), True Romance (1993), Radio Flyer (1992)

এছাড়া বিখ্যাত অনেক টিভি সিরিজ।

হ্যান্স জিমার জীবেনে পুরষ্কারও পেয়েছেন অনেক।

অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডস 1994 সালে দি লায়ন কিং এর জন্য। লা্য়ন কিং এর 15 মিলিয়ন কপি বিক্রি হয়েছিল।

গোল্ডেন গ্লোব পেয়েছেন দুবার- 1995 এ দি লায়ন কিং, 2001 সালে গ্ল্যাডিয়েটর এর জন্য।

গ্র্যামি পেয়েছেন তিনবার 1995- দি লায়ন কিং, 1996 ক্রিমসন টাইড, 2009 দি ডার্ক নাইট এর জন্য।

স্যাটেলাইট অ্যাওযার্ড পেয়েছেন 3 বার 1998 – দি থিন রেড লাইন, 2001 গ্ল্যাডিয়েটর, 2011-ইনসেপশন এর জন্য।

স্যাটার্ন দুবার – 2009 দি ডার্ক নাইট, 2011- ইনসেপশন এর জন্য।

ক্ল্যাসিকাল BRIT অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন 3 বার , 2008- দি ডার্ক নাইট ( জেমস নিউটন এর সাথে), 2013 দি ডার্ক নাইট রাইজেস, ম্যান অফ স্টিল, 2013- মিউজিকে সারাজীবনের অবদনের জন্য।

WAFCA অ্যাওয়ার্ড 2011সালে পেয়েছেন ইনসেপশন এর জন্য।

BFCA অ্যাওয়ার্ড 2000 সালে গ্ল্যাডিয়েটর-এর জন্য।

এবং 2011 সালে ইনসেপশনের জন্য ওয়ার্ল্ড সাউন্ডট্র্যাক অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন।

তিনি 7 বার অস্কারে, 7 বার গোল্ডেন গ্লোবে, 7 বার গ্র্যামিতে নমিনেশন পেয়েছিলেন নীচের সিনোমা গুলোর জন্য।

Rain Man (1988), Gladiator (2000), The Lion King (1994), As Good as It Gets (1997), The The Preacher’s Wife (1996), The Thin Red Line (1998), The Prince of Egypt (1998), and The Last Samurai (2003).

1988 সালে রেইনম্যান সিনেমা দিয়ে হ্যান্স জিমার কম্পোজার ক্যারিয়ার নতুন মোড় নেয়। সময়ের সাথে প্রচন্ড ভাবে আধুনিকতাকে ধারণ করা এই কম্পোজারের মিউজিকের পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায় 1988 সালের রেইনম্যান আর আর 2010 সালের ইনসেপশন এর স্কোর শুনলে। ইলেকট্রনিক ম্যানুপুলেশনের মেধাদীপ্ত ব্যবহার দেখা যায় এই ছবিতে। পুরনো ও নতুন মিউজিক্যাল ইন্সট্রুমেন্ট এর ব্যবহারের পাইওনিয়ার তিনি। তাকে বলা হয় the father of integrating the electronic musical world with traditional orchestral arrangements.

ক্যালিফোর্নিয়ার সান্তা মনিকায় অবস্থিত তার স্টুডিও যে কোন মিউজিক কম্পোজারের কাছে স্বর্গ।

 

 

 

 

 

ক্যালিফোর্ণিয়ায় হ্যান্স জিমারের বিখ্যাত স্টুডিও

নিজের স্টুডিওতে দেখাচ্ছেন হ্যান্স জিমার

ইনসেপশন এর সাউন্ডট্র্যাক এর মেকিং

স্ত্রী ভিকি ক্যারোলিন ও তিন সন্তানকে নিয়ে তিনি বর্তমানে লস অ্যাঞ্জেলস এর বাস করেন। জার্মান ভাষায় জিমার শব্দের অর্থ রুম বা কক্ষ। কখনো কোন মিউজিক স্কুলে বা কোন মিউজিশিয়ান এর কাছে তালিম না নেয়া হ্যান্স জিমার পুরোপুরি স্বশিক্ষিত। হ্যান্স জিমারের অন্যতম বিগেস্ট ফ্যান স্টিভেন স্পিলবার্গ ছবিগুলোতে নিয়মিত ছিলেন না তার কারণ জন উইলিয়ামস এর সাথে স্পিলবার্গের নিবিড় বন্ধুত্ব। জন উইলিয়ামস হচ্ছেন ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোরের আরেক দিকপাল, তাকে নিয়ে কথা হবে আরেক দিন। মুভি কম্পোজার হিসাবে জন উইলিয়ামস সেরা, না হ্যান্স জিমার- এই প্রশ্নে দুজনের পাল্লাই সমান ভারী। নাকি জন উইলিয়ামস এর দিকে কিছুটা বেশি ভারী? থাক এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজবো জন উইলিয়ামস কে নিয়ে পরের আলোচনায়।

হ্যান্স জিমার ও তার স্টুডিও বিষয়ে আরো জানতে হলে ক্লিক করুন.. নিজের সৃষ্টির জগতে হ্যান্স জিমার